ভেঙে পড়ল ব্রিজ, মৃত 2 আহত 30

বিকেল তখন 4.45। অনান্য দিনের মতোই চলছিল দক্ষিন কলকাতার ব্যাস্ত জীবন। কিন্তু কে জানত পরক্ষনেই ঘটে যাবে চুড়ান্ত দুর্ঘটনা ? দক্ষিন কলকাতার মাঝেরহাট ব্রিজ এমনিতেই চিরপরিচিত তার ব্যাস্ততার জন্য। আজও তার ব্যাতীক্রম ছিল না। কিন্তু বিকেল 4.45 নাগাদ বদলে গেল ছবি, হঠাৎ ভেঙে পড়ল ব্রিজের একাংশ। একটি মিনিবাস, একটি প্রাইভেট গাড়ী ও বেশ কিছু যানবাহন সহ ভেঙে পড়ল চল্লিশ বছর পুরোনো ব্রিজ টি। রক্তে ভেসে যায় রাস্তা, দুমড়ে মুচড়ে যায় ক্ষতিগ্রস্ত যানগুলি। ব্রিজের নীচে চাপা পড়া মানুষের করুন আর্তিতে ভরে যায় চারিদিক। এতক্ষন পাওয়া খবর অব্ধি মৃতের সংখ্যা দুই, আহত তিরিশ জনের বেশী।

আহতদের দ্রুত নিকটবর্তী হাসপাতালে পাঠানো হয়। মৃতের ও আহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে ।
এরমধ্যেই রাজনৈতিক মহলেও টানাপোড়েন শুরু হয়েছে এই ঘটনা কে কেন্দ্র করে। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় উচ্চপর্যায়ের তদন্তের আশ্বাস দেন। আবার বিরোধী দলগুলি সরকারের গাফিলতি কেই দায়ী করে এই ঘটনার জন্য। রাজ্যপাল থেকে রাষ্ট্রপতি প্রত্যেকেই এই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন। দ্রুত ব্যাবস্থা নেওয়া হয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এর পক্ষ থেকে। ঘটনার কিছুক্ষনের মধ্যেই 5 টি NATIONAL DISASTER RESPONSE FORCE (NDRF) এর টিম পাঠানো হয়। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ মমতা ব্যানার্জী কে ফোন করে পুরো ঘটনার খোঁজ খবর নেন। নিজের টুইটার হ্যান্ডেল থেকে আরও সাহায্যে পাঠানোর আশ্বাস দেন।
ব্রিজে বেশ কিছু গর্ত থাকাকে অনেকে এই ঘটনার মুল কারন বললেও যে অংশ থেকে ব্রিজটি ভেঙে পড়ে সেখানে ফরেন্সিক ডিপার্টমেন্ট এর এক্সপার্টরা তদন্ত করে আসল কারন জানার চেষ্টা করছেন।

আশেপাশের এলাকা বাসীরা এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এখনো আতংকে বিহ্বল হয়ে রয়েছেন।  ব্রিজের নীচে এখনো কেউ চাপা পড়ে আছেন কিনা তা জানার চেষ্টা চলছে। শত ব্যাস্তার মাঝেও আজকের তারিখটি কলকাতার একটি কালো দিন হিসাবে চিহ্নিত থাকবে।

or

Log in with your credentials

Forgot your details?